<.?php echo "Greenweb Blog"; ?>

ওয়েব সাইট বানাতে কি কি লাগবে, ডোমেইন কি, ডোমেইন কেনার পূর্বে কি কি দেখে নিবেন এবং DNS সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন ।

ডোমেইনের সবকিছু !

ওয়েব সাইট বানাতে কি কি লাগবে, ডোমেইন কি, ডোমেইন কেনার পূর্বে কি কি দেখে নিবেন এবং DNS সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন ।

ওয়েবসাইট হলো একটি যোগাযোগ মাধ্যম । ওয়েবসাইট সাধারত দুইধরনের:

১. ডাইনামিক

২. স্ট্যাটিক

 

ডাইনামিক সাইট হলো সেইসব সাইট যার কন্টেন্ট নিযমিত পরিবর্তন হয় । স্ট্যাটিক হলো সেইসব সাইট যার তথ্য সাধারনত খুব বেশী পরিবর্তন হয় না ।

উদাহরন:

ডাইনামিক: ব্লগ, সোস্যাল নেটওয়ার্ক সাইট ।

স্ট্যাটিক: কর্পোরেট সাইট যেমন: গ্রিনওয়েব

 

ওয়েবসাইট বানাতে হলে নিচের জিনিসগুলো লাগবে

ডোমেইন: এটি হলো সাইটের এড্রেস । অাইপি মনে রাখা কঠিন তাই সহজে যাতে সাইটে প্রবেশ করা যায় এ জন্য ডোমেইন ব্যবহার করা হয় । যেমন, greenweb.com.bd, facebook.com ইত্যাদি । ডেমেইন মূলত ২ রকম

1. TLD : Top Level Domain  (example: .com/.net/.org) 2. ccTLD :Country code top-level domain (example: .com.bd/.net.bd/.org.bd)

 হোস্টিং : অাপনি যে সাইটটি বানাতে চান তাতে ইমেইজ, ভিডিও সহ নানা রকম ফাইল থাকবে সেই ফাইলগুলো যে স্টোরেজে সেভ করা হয় তাকেই হোস্টিং বলে।

ডেভেলপার: আপনার সাইটটির কোডিং করার জন্য ডেভেলপার লাগবে ।

ডিজাইনার: সাইটের UI ( ইউজার ইন্টারফেস ) তৈরী করার জন্য ডিজাইনার লাগবে ।

 

গ্রিনওয়েবে কি এই সব সার্ভিসই পাওয়া যাবে ?

 = পাওয়া যাবে ।

 ডোমেইন কি?

 

ডোমেইন হলো ঠিকানা । ধরুন আপনি একটি দোকান খুঁজতে চান সেক্ষেত্রে প্রথমেই লাগবে দোকানের ঠিকানা । একইরকম ভাবে যখন আপনি কোনো ওয়েবসাইট বানাতে কিংবা কোনো ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে চান তখন একটি ঠিকানার প্রয়োজন হবে । সেই ঠিকানাটিই হলো ডোমেইন ।

সাধারনত, প্রতিটি সার্ভারে নির্দিষ্ট কিছু অাইপি দেওয়া হয়ে থাকে । যখন সার্ভারে কোনো হোস্টিং করা হয় তখন একটা ফোল্ডার তৈরী করা হয় এবং যার পাবলিক ঠিকানা হয় অনেক টা এরকম:

 

http://216.158.229.228/newfolder

 

কিন্তু এটা মনে রাখা কষ্টকর বিধায় সহজ একটি ডোমেইন এতে জুড়ে দেওয়া হয় । যেমন ধরুন greenweb.com.bd কে দেওয়া হলো । সেক্ষেত্রে যখন কেউ greenweb.com.bd ডোমেইনে প্রবেশ করবে সে তখন সার্ভারের ঐ ফোল্ডারের ফাইলগুলো দেখতে পারবে ফলে তাকে কঠিন অাইপি এড্রেস টি মনে রাখতে হবে না ।

যদি ডোমেইন না থাকতো তবে কঠিন কঠিন ঠিকানা গুলি অাপনাকে মনে রাখতে হতো । ভাবুন তো গুগল, ফেসবুক সহ দরকারী ১০০ টি সাইটের ঠিকানা না থাকলে অাইপি মুখস্থ করতে কতটা কষ্ট হতো ?

ডোমেইন ক্রয়ের পূর্বে কি কি দেখে নিবেন?

  • .com available কিনা যদি portfolio বানান তবে .me কিংবা .info নিতে পারেন । তবে অন্য সকল ক্ষেত্রে .com কে সবথেকে বেশী গুরুত্ব দিবেন ।
  • ডোমেইন এর সংখা ৮ অক্ষরের মধ্যে যেন থাকে, বড় ডোমেইন গুগল ফ্রেন্ডলি হয়না । এছাড়াও বড় ডোমেইন হলে ইউঅারএল এর অনেকাংশ সার্চ রেজাল্টে ঢাকা পড়বে তাই ছোট ডোমেইন নেওয়া উচিত ।
  • ডোমেইনটি সহজে উচ্চারন করা এবং লেখা যায়, কোনো রকম কনফিউসন তৈরী কারী ব্যাপার যাতে না থাকে । যেমন: dokan.com এবং dokaan.com অনেকটাই একই রকম ।

রেজিস্টার কিংবা যার থেকে ক্রয় করবেন তার থেকে জেনে নিবেন:

  • ডোমেইন এর সাথে কন্ট্রোল প্যানেল পাবেন কিনা ।
  • ডোমেইন এর রেজিস্ট্রেশন কার তথ্য ব্যবহার করে হবে ।
  • ডোমেইন ট্রান্সফার করা যাবে কিনা যখন তখন । কোনো হিডেন পলিসি অাছে কিনা ইত্যাদি ।
  • ডোমেইন এর সাথে প্রাইভেসি প্রোটেকশন সিস্টেম অাছে কিনা ।

 

DNS কি ? কিভাবে DNS Management করবেন?

 

 

DNS : Domain Name System/Server

 

এটি হলো একটি পদ্ধতি যা নির্ধারন করে যখন অাপনি কোনো ডোমেইনে প্রবেশ করবেন তা কোন সার্ভার থেকে তথ্য প্রদর্শন করবে । অাগের টিউটোরিয়ালে অামরা বলেছি ডোমেইন এর কাজ হলো কোনো সার্ভারের তথ্যকে অাইপির বদলে সহজে অক্ষর দ্বারা প্রদর্শন করা ।

প্রতিটি সার্ভারেরই নির্দিষ্ট ইউনিক অাইপ থাকে এবং ঐ অাইপির সাথে ডোমেইনের সংযোগ স্থাপনের জন্য DNS ব্যবহার করা হয় । DNS রেকর্ড বিভিন্ন ধরনের হয় ।

 

DNS Element Description
Nameserver এটি মূলত এটি হলো একটি সার্ভার যাতে DNS ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম স্থাপন করা অাছে কিন্তু যখন বলা হবে ওয়েবহোস্টিং নেমসার্ভার তখন বুঝে নিবেন এটি হলো সার্ভারের অাইপি এর ডোমেইন । যেমন: 216.158.229.228 সার্ভার অাইপি মনে রাখা জটিল তাই সহজে মনে রাখতে ns1.greenweb.com.bd অামরা ব্যবহার করি । এর দ্বারা মূলত ঐ অাইপিকেই চিন্হিত করা হয় ।
Zone File এটি একটি ফাইল যাতে DNS এর সব তথ্য জমা থাকে ।
A Record

এটা দ্বারা অালাদা অালাদা সার্ভারে একই ডোমেইনের সাব ডোমেইন কে হোস্ট করা সম্ভব ।

যেমন: @ এ যদি 216.158.229.228 দেন তবে ডোমেইন রুট এই সার্ভারে পয়েন্ট করা হবে ।

www যদি 216.158.229.229 দেন তবে তা 216.158.229.228 থেকে ডাটা না নিয়ে বরং 216.158.229.229 এ পয়েন্ট হবে এবং ডাটা প্রদর্শন করবে ।

CNAME মূলত ডোমেইনকে নেমসার্ভার হিসাবে ব্যবহার করা হয় । যেমন: ব্লগস্পট ।
MX Records এটি নির্ধারন করে মেইল সার্ভার কে ।

 

কিভাবে বদলাবেন?

 

https://gp.greenweb.com.bd/clientarea.php?action=domains এ যান, এরপর ম্যানেজে ক্লিক করলে নেমসার্ভার পরিবর্তন, রেকর্ড পরিবর্তন এবং অ্যাডভান্সড্ ডিএনএস ম্যানেজমেন্ট করার সব অপশন পাবেন ।

 ডোমেইন রিনিউ কিভাবে করবেন?

গ্রিনওয়েবে কন্ট্রোল প্যানেলে লগিন করে ম্যানেজ ডোমেইনে ক্লিক করুন এরপর রিনিউ বাটনে ক্লিক করুন । এক্সপায়ার ডেটের হিসাব? ধরুন অাপনার ডোমেইন ১১/১১/২০১৭ তে এক্সপায়ার হবার কথা এখন যদি অাপনি রিনিউ কিংবা ট্রান্সফার করেন তবে এক্সপায়ার ডেট ১ বছর বেড়ে যাবে অর্থাৎ ১১/১১/২০১৮ তে এক্সপায়ার হবে ।।  অাপনি যেদিনই ট্রান্সফার কিংবা রিনিউ করুন না কেনো অাপনার শেষ এক্সপায়ার ডেটের সাথে ১ বছর যুক্ত হবে । অনেকে ভাবে যে এখন রিনিউ করলে হয়তোবা মেয়াদ এখন থেকে কাউন্ট হবে এটা ভুল ধারনা মেয়াদ অাপনার বর্তমান এক্সপায়ার ডেট থেকে কাউন্ট হবে ।অাপনি ক্রয়ের একদিন পরও যদি রিনিউ করেন সমস্যা নেই ফুল ২ বছর মেয়াদ পাবেন এক্ষেত্রে ।

অবশ্যই ডোমেইন এক্সপায়ার হবার অাগেই রিনিউ করবেন, গ্রিনওয়েবে ডোমেইন এক্সপায়ার হবার পরও ১ মাস পর্যন্ত রিনিউ করা যাবে ।

ডোমেইন ট্রান্সফার কিভাবে করবেন?

এই লেখাটি পড়ুন :  https://blog.greenweb.com.bd/-how-to-transfer-your-domain-37.html

সবাইকে ধন্যবাদ, অাশাকরি লেখাটি অাপনাদের উপকারে অাসবে ।

লিখেছেন

মো: জোবায়ের অালম

ফাউন্ডার, গ্রিনওয়েব ।


Share This Post to Keep This Site Alive

Like FanPage: Like Post:

Comments


No comments to display for this post.

LEAVE A REPLY


Visitors Counter

Unique Visitors: